জীবনাচারের ১০টি ভুল জানি না বলেই শুদ্ধ হয় না

জীবনাচারের ১০টি ভুল জানি না বলেই শুদ্ধ হয় না। জীবন-যাপনে প্রতিনিয়ত আমরা কত ভুলই তো করে থাকি। কিন্তু কিছু ভুল আছে যার খারাপ প্রভাব আমাদের জীবনে খুবই প্রচ্ছন্নভাবে পরে। আর ওই ভুলগুলো সম্পর্কে আমরা হয়ত জানি না বলেই তা কখনো শুদ্ধও করা হয় না। এখন আমি আপনাদেরকে জানাচ্ছি জীবনাচারের অনেক ভুলের মাঝে মাত্র ১০টি ভুল।

এক সময়ে একের অধিক কাজ

বর্তমান প্রযুক্তির দুনিয়ায় আমরা খুবই ব্যস্ত। আমাদের হাতে যেন সময়ই নেই। তাই এক সময়ে অনেকগুলো কাজ করে এগিয়ে যেতে চাই। দুর্বার গতিতে কিন্তু সত্যিই কি আমার এগোতে পারি? বিজ্ঞান বলছে, এক সময়ে একের অধিক কাজ করা কোনভাবেই বুদ্ধিমানের কাজ নয়। কারন সেসব কাজে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে অনেক বেশী। তাই এক সময়ে একটি কাজ করুন, তারপর একটু বিরতি নিন, আবার অন্য কাজ শুরু করুন। তাহলে দেখবেন প্রতিটি কাজ খুব দ্রুত হবে এবং তাতে ভুল হওয়ার সম্ভাবনাও কমবে।

বিরতি নিয়ে গোসল করা

গোসল নিয়ে এখন আমি যা বলবো তা শুনে অনেকেই হয়ত বিস্মিত হবেন। কারন আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে সুস্থ থাকতে প্রতিদিন গোসল করো, পরিস্কার থাকতে সাবান দিয়ে শরীর ডলো। কিন্তু বিজ্ঞান কি বলছে জানেন? আমাদের শরীরে চামড়ার উপরিভাগে সূক্ষ একটি স্তর আছে। যেটি আমাদেরকে কে বিভিন্ন জীবানু আর ব্যকটেরিয়া থেকে রক্ষা করে। প্রতিদিন গোসল করলে সেই স্তরটি উঠে যায় এবং তা পুনরায় তৈরি হওয়ার সময় পায় না। তাই দুই চারদিন বিরতি দিয়ে গোসল করলে সেটা কিন্তু শরীরের জন্য ভালোই।

বাথরুম করার সঠিক উপায়

পৃথিবীর শুরু থেকে সভ্যতার সাথে সাথে মানুষ বেশ কয়েকটি পজিশনে মলত্যাগ করতে শিখেছে। এর মধ্যে দুটি পজিশন সবচেয়ে জনপ্রিয়। একটি হল হাঁটু মুড়ে বসে মলত্যাগ করা, যেটা লো কমোডে করা হয়। আরেকটি হল বসে যেটা হাই কমোডে করা হয়। কিন্তু বিজ্ঞান বলছে, রিলাক্সে বসে মলত্যাগ করাই ভাল। তবে মনে রাখতে হবে কমোডের উচ্চতা যেন ব্যক্তির শরীরের সমানুপাতিক হয়।

শ্বাস নেয়ার কার্যকর প্রক্রিয়া

শ্বাস-প্রশ্বাস নেয়ার বিষয়টি আমাদের অবচেতন মন থেকেই সর্বক্ষণ নিয়ন্ত্রন হয়। তাই কষ্ট না হলে বিষয়টি নিয়ে আমরা কখনো চিন্তাও করি না। কিন্তু শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণেরও একটি কার্যকর পদ্ধতি আছে যা আমরা অনেকেই জানি না। শ্বাস নেয়া উচিত নাক দিয়ে। নাক দিয়ে শ্বাস নেওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। এতে সরাসরি মস্তিষ্কে অক্সিজেনের জোগানের কারণে মস্তিষ্কের সক্রিয়তা বাড়ে। আর রক্তেও অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়ে।

দাঁত মাজা

দন্তচিকিৎসকরা আমাদেরকে সাধারনত বলে থাকেন দিনে দুইবার দাঁত মাজা উচিত। দাঁতের ফাঁকে ময়লা দুর করার জন্য ফলস ব্যবহারেরও পরামর্শ দেন তারা। তবে মনে রাখতে হবে দাঁতের উপরি ভাগে এনামেল নামক একটি পদার্থ থাকে, যেটি দাঁতকে সুরক্ষিত রাখে। তাই বেশী দাঁত মাজলে ক্ষয় হয়ে যেতে পারে এনামেল। আর ফল খাওয়ার পর কখনোই দাঁত মাজা উচিত নয়।

ব্যাগে কাপড় রাখার পদ্ধতি

ব্যাগের মধ্যে কাপড় রাখার সঠিক নিয়মটি আমরা অনেকেই জানিনা। ব্যাগে কাপড় স্তুপীকৃত ভাবে না রেখে কাপড়গুলো আড়াআড়ি ভাবে রাখুন। তাতে করে যেটা হবে, ব্যাগ খুলেই আপনি আপনার পছন্দের কাপড়টি তুলে নিতে পারবেন, অন্য কোন কাপড়ের ভাঁজ নষ্ট না করেই।

বিশ্বের অসাধারণ আজব ও উদ্ভুত ৭ ঝরনা

কানে হেডফোন গোঁজার নিয়ম

বর্তমানে প্রতিটি মানুষের পকেটে থাকে মোবাইল আর কানে থাকে হেডফোন। কিন্তু কানে হেডফোন গোঁজার সঠিক নিয়ম কি আমরা জানি? কানে হেডফোন গোঁজার সঠিক নিয়ম হল কানের লতির পিছন দিক থেকে হেডফোনের তারটি ঘুরিয়ে তারপর কানে হেডফোনটি ঢুকান। তাতে করে হঠাৎ করেই কান থেকে হেডফোন খুলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না।

প্রস্রাব করার সঠিক নিয়ম

আমাদের সমাজে বিশেষ করে ছেলেরা দাড়িয়ে প্রস্রাব করতে স্বাছন্দ্যবোধ করে। কিন্তু যারা দাড়িয়ে প্রস্রাব করেন তারা জেনে রাখুন, দাড়িয়ে প্রস্রাব করা মোটেও স্বাস্থ্যসন্মত নয়। বসে প্রস্রাব করা শরীরের জন্য অত্যন্ত ভাল। এতে একদিকে যেমন প্রস্রাবের থলি ভালভাবে খালি হয় অন্যদিকে আমাদের কিডনীর ছাঁকন প্রক্রিয়া যথাযথভাবে সম্পন্ন হয়।

চাবির রিং এ চাবি ঢোকানো

চাবির রিং এ চাবি ঢোকাতে আমাদের প্রায়শই কতই না কষ্ট করতে হয়। কিন্তু এর একটি সহজ পদ্ধতি আছে আছে। চাবির রিং এর মাঝখানে পিন রিমুভারটি ঢুকিয়ে দিন, তারপর ইচ্ছেমত চাবি ঢোকান রিং টিতে।

চেয়ারে বসা

এখনকার মানুষ তো সারাক্ষই বসে থাকে, আর যারা কম্পিউটার কাজ করে তাদের তো কথাই নেই। তাই মেরুদন্ডের ব্যাথা এখন একটি সাধারন সমস্যা চেয়ারে বসার আদর্শ উপায় হল চেয়ারের পিছনে পিঠ লাগিয়ে শরীর সোজা রেখে কাজ করতে হবে। পা থাকবে দেহের সমান্তরালে বসার চেয়ার নরম না হওয়াই ভাল। তবে আপনি শুনলে আবাক হবেন, বিজ্ঞান বলছে বসার জন্য টুল হল সবচেয়ে উত্তম।

1 thought on “জীবনাচারের ১০টি ভুল জানি না বলেই শুদ্ধ হয় না”

  1. Pingback: প্রাচনী যুগের পৃথিবী বিখ্যাত ৫ নারী শাসক – Yify Subtitles

Leave a Comment